হাসপাতাল থেকে ছুটি তামিমের তবু বিকল্প ভেবে রেখেছে কোচ!

1
111

তামিম ইকবাল ভাইরাল জ্বরে ভুগে আগেই ভতির্ হয়েছেন হাসপাতালে। সুস্থ হয়ে উঠলেও কাল তারঁ জন্য খেলা খুব কঠিন।ঢাকার এ ওপেনারের বিকল্প ভেবে রেখেছেন কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন । বিপিএল ঢাকা ছেড়ে চট্রগ্রামে চলে এলেও দলের সঙ্গে নিজের শহরে আসতে পারেনি তামিম ইকবাল।ভাইরাল জ্বরে ভোগায় তাঁকে থাকতে হয়েছে হাসপাতালে। ঢাকা প্লুটনের প্রধান কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন আজ জানালেন তামিমের সর্বশেষ অবস্খা। বিপিএল এ শেষ দুই ম্যাচে ফমের্ ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছেন তামিম । কুমিল্লা ওয়ারিয়সের্র বিপক্ষে খেলেছেন ৭৪ রানের ইনিংসে। এরপর সিলেট থান্ডারের বিপক্ষেও ৩১ রান করেছেন। ঢাকায় ৩ ম্যাচে ২ জয় পাওয়া ঢাকা টুর্নামেন্ট এ মূহুর্তে তামিমের না থাকাটা বঢ় ধাক্কা বলে মনে করেছেন সালাউদ্দিন, তিনি আর ও বলেন, ‘তামিমের না থাকা যেকোন দলের জন্য বড় ক্ষতি। আমাদের প্রধান ব্যাট্সম্যান । রানের মধ্যে ও ফিরছিল।’ তামিমের বিকল্প হিসেবে স্থানীয় ক্রিকেটারদের মধ্যে থেকে কাউকে খেলানোর ইঙ্গিত দিয়েছেন ঢাকা প্লাটুনের এই কোচ। আজ দলটির অনুশীলনের পালা। অনুশীলনে ছিলেননা অধিনায়ক মাশরাফি বিন মতুর্জাও। চোট কিংবা ফিটনেস নিয়ে মাশরাফির কোনো সমস্যা আছে কিনা, এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আশ্বস্ত করলেন সালাউদ্দিন, ‘মাশরাফি ঠিক আছে। চিন্তা না করলেও চলবে। এখন সে তৈরি আছে। জিম করছে,সুইমিং করছে। মাঠে না থাকলেও মনে করবেন না সে খেলার মধ্যে নেই।’

ই্এপিল এ কাল চট্রগ্রাম চ্যালেন্জার্সের মুখোমুখি হবে ঢাকা। চট্রগ্রামে আরও দুটি ম্যাচ খেলবে ঢাকা। জাতীয় দলের তারকা ওপেনার তামিম ইকবাল এর শারিরীক অবস্থা নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড এর বিসিবি প্রধান দেবাশিশ চৌধুরি বলেন, তামিমের অবস্থা অনেকটাই ভাল। জ্বর কমছে। বাসায় ফিরেছে।মঙ্গলবার তার কুচকির স্ক্যান করানো হয়েছে। কুচকির চোটের সঙ্গে তামিম ইকবালের জ্বর চিন্তায় ফেলেদিয়েছিল ঢাকা প্লাটুনকে। হাসপাতালে ভতির্ হয়েছিলেন তিনি। তামিমের অবস্থা এখন অনেকটাই ভাল। বাসায় ফিরে গেছেন বাম হাতি এ ওপেনার। জ্বর কমেছে। যদিও এখনও কুচকিতে হালকা ব্যাথা রয়েছে। ঢাকা প্লাটুনের কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন বলেন, গত দুদিন তামিম ইকবালের অনেক জ্বর ছিল। সুস্থ হলেও চট্রগ্রামে প্রথম ম্যাচ খেলতে পারবেন না তিনি। তিনি আরও বলেন আমাদের পরের ম্যাচ একটু দেরিতে। তামিম যদি বুধবার সুস্থ অনুভব করে তাহলে হয়তো মাঠে নামতে চাইবে। কিন্তু আমি তাকে ফিট হবার জন্য যথেষ্ট সময় দিতে চাই।

এদিকে দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে বাঙ্গালির সেই মুক্তির দিন ১৬ই ডিসেম্বর। পাকিস্তানি শাসনের অবসান ঘটিয়ে ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর বিশ্বের মানচিএ তে নতুন দেশ হিসেবে বাংলাদেশ আত্নপ্রকাশ পায়।আর এ বিজয় উদযাপন এ পিছিয়ে নেই বাংলাদেশই ক্রিকেটাররা। বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা ও মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সম্মান ও ভালবাসা জানিয়েছেন সবাই । সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম তাদের ফেসবুক পেজে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

সাকিব আল হাসান লেখেন, মহান বিজয় দিবসে ১৯৭১ এর বীর মুক্তিযো্ধাদের আত্নত্যাগের মাধ্যমে আমরা পেয়েছিলাম বিজয়।সেই দিনের অজির্ত সেই বিজয়ই আমাদের জন্য তৈরি করে দিয়েছে আরও অনেক বিজয়ের সম্ভাবনা। বিজয়ের ৪৯ তম বছরে নতুন করে উদ্দজীবিত হই সেই প্রথম বিজয়ের চেতনায়। সবাইকে মহান বিজয় দিবসের অনেক অনেক শুভেচ্ছা।

এদিক নিজের ফেসবুক পেজে বাংলাদেশের পতাকা হাতে দাড়িয়ে হাস্যজ্জল একটি ছবি পোষ্ট করেছেন মুশফিক।ক্যাপশনে তিনি লিখেছেন, ‘আমরা অনেকেই আমাদের জাতীয় পতাকার লাল সবুজ বণের্র অর্থ জানিনা। আজকের এই বিজয়ে আমি এর মানে শেয়ার করতে চাই। লাল বৃও টি সামান্য স্থাপন করা হয়েছে, যেন পতাকাটি উড়ানোর সময় এটি মাঝ বরাবর দেখানো যায়। এটি বাংলার উপরে সূর্যদয় এবং ১৯৭১ সালের শহীদের যে রক্ত ঝড়েছিল তারঁ অর্থ বহন করে । সবুজ বর্ণ বাংলাদেশের ভূমির উজ্জলতা প্রদর্শন করে। আজ আমরা এ পতাকাটি অতি গবের্র সঙ্গে বুকে ধারণ করে রেখেছি। ১৬-ই ডিসেম্বর এমন একটি বিজয় যা আমাদের অনেক বিজয়ের দ্বার উম্মুক্ত করেছে। মুক্তিযোদ্ধাদের সালাম জানাই। আপনাদের কখনও ভোলা সম্ভব না।

সাকিব ও তামিম

১ মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে