“মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ”প্রত্যেক ম্যাচের শেষ আশা।

0
172
Credit: icc-cricket.com

“মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ” ১৯৮৬ সালে ৪ই ফেব্রুয়ারি ময়মনসিংহ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি সাধারণত “মাহমুদউল্লাহ” নামেই পরিচিত। তবে অনেকে তাকে “Silent killer’ নামেও ডাকে। বর্তমানে তার বয়স ৩৩ বছর, উচ্চতা = ৬.০ ফিট।”মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ”একজন ফার্স্ট ক্লাস ব্যাটসম্যান। তিনি বাংলাদেশের হয়ে মিডেল অর্ডারে ব্যাটিং করেন,পাশাপাশি অফ স্পিন বলও করে থাকেন। তিনি একজন সফল অলরাওন্ডার। তিনি বহু হারা ম্যাচ জিতিয়েছেন, তাই তিনি বাংলাদেশের “Silent killer”। তিনিই বাংলাদেশের হয়ে বিশ্বকাপে প্রথম এবং একমাত্র সেঞ্চুরি করেন। তিনি প্রায় তিনি ফরমেটেই ভাইস ক্যাপ্টেন হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

তার অভিষেক

টেস্ট = ৯ই জুলাই ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে

ওয়ান্ডে = ২৫ জুলাই ২০০৭ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে

টি২০ = ১ই সেপ্টেম্বর ২০০৭ সালে কেনিয়ার বিপক্ষে

মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদের ক্যারিয়ার

টেস্টঅডিয়াইটি২০
ম্যাচ৪৬১৮৫৭৮
মোট রান২৬৬৯৩৯৯৪১৩০৯
ব্যাটিং গড়৩২.৫৪৩৩.৮৪২৩.৩৭
হাফ সেঞ্চুরি ১৬২১০৩
সেঞ্চুরি০৪০৩০০
বেস্ট রান ১৪৬১২৮৬৪
উইকেট৪৩৭৬৩১
বোলিং গড় ৪৪.৬২৪৬.৪০২৬.৯৩
বেস্ট বোলিং ৫/৫১৩/৪৩/১৮
credit: icc-cricket.com

“মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ” অত্যন্ত শান্ত সভাবের।বাংলাদেশের হয়ে অনেক ম্যাচ তিনি ঠান্ডা মাথায় খেলে জিতিয়েছেন। “মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ”সবসময় চেস্টা করেন নিজের সেরাটা দিতে, চেস্টা করেন শেষ পর্যন্ত খেলতে। মিডেল অর্ডারে তার থেকে ভালো ব্যাকআপ হয়ত অন্য কেউ দিতে পারে না,ফিনিসার ব্যাটসম্যান হিসেবে তিনি বাংলাদেশ টিম এর জন্য একদম পারফেক্ট।

“মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ”এর সাথে ভালো পার্টনারশিপ রাখতে পারলে খেলায় ভালো করা কোনো কঠিন কাজ নয়। তার একটি প্রমাণ হচ্ছে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষের ম্যাচটি, সেই ম্যাচে সাকিব ও “মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ”দুজনই সেঞ্চুরি করেছিল, তাদের পার্টনারশিপ ছিল ২০৩ রানের, যা রীতিমতো ক্রিকেট দুনিয়াকে তাক লাগিয়ে দেয়। সে দিনের ম্যাচ ছিল দেখার মত।

যত দিন আছে “মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ”ততদিন বাংলাদেশের মানষের মধ্যে ম্যাচ দেখার চরম উত্তেজনা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে